পোশাক শিল্পের কিছু বৈপ্লবিক আবিষ্কার

পোষাক শিল্পে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের কারণে আজকাল যে কোন সাইজ,বাজেট কিংবা স্টাইলের পোষাক আমরা খুব সহজেই পেয়ে থাকি। জারা,এইচএন্ডএম এর মত পোষাক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো প্রায় প্রতি সপ্তাহে নতুন কোন না কোন ডিজাইনের পোষাক বের করে থাকে।

সভ্যতার শুরু থেকেই পোষাক আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ।এই পোষাক শিল্পের সুদীর্ঘ ইতিহাস এই একটি লেখায় প্রকাশ করা সম্ভব নয়।তবুও আমরা আমাদের এই লেখায় কিছু গুরুত্বপূর্ণ মুহুর্ত তুলে ধরব এবং দেখব সময়ের সাথে ফ্যাশন কিভাবে পরিবর্তিত হয়েছে।

আমরা এখন পোষাক শিল্পের কিছু গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কারের কথা বলব যা পোষাক উৎপাদনকে গতিশীল আর সহজলভ্য করেছে।

মেশিন

শিল্প বিপ্লবের সবচেয়ে দ্রুত উন্নতির সময়কাল ধরা হয় ১৭৬০ থেকে ১৮৪০। এই সময়ে আধুনিক কালের ফ্যাক্টরি ধারণার উদ্ভব ঘটে। ইঞ্জিন আর স্টীম এই সময়ের যুগান্তকারী আবিষ্কার যা পোশাক শিল্পের ইন্ড্রাস্টিতে এক নতুন যুগের সূচনা করে।যার ফলে,এখন পোষাক উৎপাদনের হার হয়েছে অনেক দ্রুত।

স্পিনিং জেনি

এটি হলো জেমস হারগ্রিয়েভস এর আবিষকৃত প্রথম স্পিনিং মেশিন। এটি আবিষ্কার হয় ১৭৭০ সালের দিকে।এটি প্রথমে আটটি স্পিন্ডল সাপোর্ট করত,পরবর্তিতে যা ১২০ গিয়ে দাড়ায়। সিংগেল স্পিনিং হুইলের বিপরীতে এটি ছিল যুগান্তকারী আবিষ্কার।

সেলাই মেশিন

ইংরেজ আবিষ্কারক থমাস সেন্ট প্রথম সেলাই মেশিন আবিষ্কার করেন ১৯৭০ সালের দিকে। কিন্ত ফ্যাক্টরিতে যেখানে লক্ষ লক্ষ পিস পোষাক উৎপাদন করা লাগে সেখানে এই মেশিন খুব একটা কার্যকরী ছিল না।ফ্যাক্টরি উপযোগী করার জন্য ১৮২৯ সালে এই মেশিনের একটা প্রোটোটাইপ তৈরী করেন ফরাসী টেইলর বার্থমেলি থাইম্মোনিয়ের। পরের বছর তাঁর পেটেন্ট পাবার কথা ছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত তাঁর ফ্যাক্টরি আগুনে পুড়ে যায়।সে গল্প অন্য আরেকদিন।

আমাদের বাসায় সিঙ্গার মেশিন দেখি নাই এমন লোক খুব কম খুজে পাওয়া যাবে। এই সিঙ্গার মেশিনের আবিষ্কারকের নাম আইজ্যাক মেররিট সিঙ্গার। হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন ইনিই আজকের সিঙ্গার কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা।

 

তুলার জিন

না,এটা কোন আসল জিন না। এটা হলো একটা মেশিন যা তুলার বীজ থেকে সুতা তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। এটি আবিষ্কার করেন আমেরিকান আবিষ্কারক ইলি হোয়াইটনেই। সাল ১৭৯৪। এই যন্ত্রের নামটা ‘ইঞ্জিন’ এর ‘জিন’ থেকে নেওয়া। তুলার বীজ থেকে সুতার কাজটা আগে হাতে করা হতো। যেখানে একজন মানুষ সারাদিনে ৪৫০ গ্রামের মত সুতা তৈরি করতে পারে বীজ থেকে,সেখানে এই একই সময়ে এই মেশিন দিয়ে প্রায় ২৫ কেজি সুতা উৎপাদন সম্ভব। এর ফলে পোষাক শিল্পের এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটে।

 

কৃত্রিম রং

রং এখন সবজায়গায় সহজলভ্য। কিন্ত তা আগে এতটা  সহজল্ভ্য ছিল না । আগেকার দিনে রং উৎপাদনের জন্য টেইলরদের প্রাকৃতিক উপাদানের উপর নির্ভর করা লাগত যার ফলে যে কোন রং বানানো যথেষ্ঠ কঠিন ছিল। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়,বেগুনী। বেগুনী রং প্রাচীনকালে অভিজাত শ্রেণীর পোষাকের রঙ হিসেবে বিবেচিত হতো।

প্রথম সিন্থেটিক রং আবিষ্কার হয় ১৮৫৬ সালে। মজার ব্যাপার হলো এটি কেমিস্ট্রি ল্যাবের ব্যর্থ গবেষণার ফলাফল। উইলিয়াম হেনরি পার্কিন নামের এক টিনএজ ছাত্রকে তার প্রফেসর ল্যাব অ্যাাসাইনমেন্ট দিয়েছিলেন। প্রথম আবিষ্কৃত সিন্থেটিক রংটি হলো এয়ারলাইন পার্পল।

সিন্থেটিক ফেব্রিক

সুতা থেকে ফেব্রিক বানানো শুরু হয় উনিশ শতকের দিকে।সুইস কেমিস্ট অডেন্ডকে  ১৮০০ সালের দিক প্রথম কৃত্রিম সিল্ক আবিষ্কারের জন্য পেটেন্ট দেওয়া হয়।একই সময়ে সিল্কের বিকল্প আরেক ধরণের ফেব্রিক “রেয়ন” উদ্ভাবন করেন স্যার জোসেফ সোয়ান।

পিভিসি

পিভিসি বা পলিভিনাইল ক্লোরাইড যদিও প্লাস্টিক শিল্পের এক গুরুত্বপূর্ণ আবিষ্কার,এই পিভিসির ব্যবহার পোষাক শিল্পে ব্যাপক। রেইনকোট বা ম্যাট্রিক্স মুভির ক্যারেক্টারদের পোষাকের মত পোষাক তৈরীতে পিভিসি ব্যবহার করা হয়।

নাইলন

নাইলনের আবিষ্কারক কয়েকজন কেমিস্ট যারা মূলত আমেরিকার ডাপনট নামের একটা ক্যামিক্যাল কোম্পানিতে কাজ করত।তারা প্রথমে টুথব্রাশে এটি ব্যবহার করত,পরবর্তীতে এর কার্যকরীতার জন্য হোসিয়ারিতে(মোজা,অন্তর্বাস ইত্যাদি) এর ব্যপক ব্যবহার শুরু হয়।সিন্থেটিক ফ্যাব্রিকের আগে,সিল্ক দিয়ে মেয়েদের স্টকিন্স(এক ধরণের লম্বা মোজা) তৈরী হতো,যা পরবর্তীতে নাইলন দিয়ে বানানো শুরু হয়।কারণ নাইলন ছিল অনেক সস্তা আর আরামদায়ক।

লাইক্রা

সিন্থেটিক ফ্যাব্রিকের আগে,খেলাধূলার পোষাক তৈরীতে কটন আর সাটিন ব্যবহার করা হত।কিন্তু কটন এর তৈরী পোষাকগুলো খেলার পোষাক হিসেবে কার্যকর না,কারণ এটি সহজেই শরীরের ঘাম শুষে নেয়, যা খেলোয়াড়দের জন্য খুবই বিরক্তিকর।এই সমস্যা সমাধানের জন্য আবার এগিয়ে আসল “ডাপনট”।১৯৫৮ সালে ডাপনটের কেমিস্ট জোসেফ শিমার লাইক্রা আবিষ্কার করেন আর বাণিজ্যিকভাবে এর ব্যবহার শুর হয় ১৯৬২ সালের দিকে।

শেষ করি মজার একটা তথ্য দিয়ে। আমরা সবাই স্মার্ট ওয়াচ কিংবা ফোনের সাথে পরিচিত। কিন্তু স্মার্ট ক্লথ?এমিল+এরিস নামের ব্র্যান্ড একধরণের স্মার্ট কোট বাজারজাত করেছে যা হিট প্রডিউস করতে পারে।